> পিসি বাংলাদেশ~ PC BANGLADESH

রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

পৃথিবীর সব টিভি চ্যানেল এখন আপনার স্মার্ট ফোনে- All TV Channel in your Smart Phone

 আসসালামুআলাইকুম । আশা করি সবাই অনেক ভালো আছেন। অনেক দিন পর পোষ্ট করছি , তাই স্পেসাল কিছু না হলে কি চলে? আমরা অনেকেই মোবাইল ফোনে টিভি দেখতে চাই, এর জন্য অনেক অ্যাপ্স ও আমরা ডাউনলোড করে থাকি প্লে স্টোর থেকে। তার মধ্যে বাইস্কোপ , বিডিআইক্স টিভি অন্যতম। কিন্তু আপনিই বলুন তো এগুলোর মধ্যে কি পৃথিবীর সব টিভি চ্যানেল থাকে? বিশেষ করে জি বাংলা থাকলে স্টার জলশা থাকে না, এই রকম আরো অনেক সমস্যা। 

এই সব সমস্যা সমাধান করার জন্য আমি আপনাদের একটি অ্যাপ্স দিব যেখানে আপনি প্রায় পৃথিবীর সব টিভি চ্যানেল খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।এই অ্যাপ্সটি আপনি প্লে স্টোর পাবেন না । আমি এই পোষ্টের নিচে লিংক দিয়ে দিব।

All TV Channel in your Smart Phone

অ্যাপ্সটির নাম হল HD STREAMZ , এই অ্যাপ্সটিতে এত চ্যানেল আছে যে আপনি  চ্যানেল এর সমুদ্রে হারিয়ে যেতে পারেন। এখন থেকে আপনার পছন্দের টিভি চ্যানেলটি খুজে নিন। 

লিঙ্কঃ HD STREAMZ.APK

আরো দেখুনঃ 

1. অল্প সময়ে উইন্ডোজ ইনস্টল করুন খুব সহজে

2. স্মার্ট ফোনে যে 24 টি অ্যাপ থাকা মানেই আপনার সর্বনাশ

Post Comment

সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০২০

অল্প সময়ে উইন্ডোজ ইনস্টল করুন খুব সহজে


বিভিন্ন  কারনেই আমাদের উইন্ডোজ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ফলে অনেক কষ্ট ও সময় ব্যায় করে উইন্ডোজ ও অনান্য  সফটওয়্যার ইনষ্টল করতে হয়। ভাবুন তো এক নিমেষেই যদি উইন্ডোজসহ আপনার সকল অ্যাপলিকেশন ইনষ্টল করা যেত  তবে কেমন হত? আপনি কয়েক মিনিটের মধেই উইন্ডোজসহ  ড্রাাইভে ইনষ্টল করা আপনার সকল অ্যাপলিকেশন ইনষ্টল করতে পারেন হিরেন বুট সিডি দ্বারা। এজন্য আপনার উইন্ডোজের ড্রাইভ ইমেজ তৈরি করে রাখতে হবে । ফ্রি একটি সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে তা  সিডিতে রাইট করুন। 

ডাউনলোড লিঙ্কঃ  http://www.hiren.info/pages/bootcd 

উইন্ডোস ইমেজ তৈরী করার নিয়ম:

  • আপনার একটি ড্রাইভে নতুন করে উইন্ডোজ ইনষ্টল করুন ও সকল দরকারী সকল সফটওয়্যার এবং ড্রাইভার ইনষ্টল করুন ।
  • এখন রাইট করা সিডিটি প্রবেশ করিয়ে সিডি থেকে বুট করুন। Hiren’s All in 1 BootCD এই অপশন আসবে যেখানে কীবোর্ড দ্বারা Disk Clone Tool  সিলেক্ট করে এন্টার প্রেস করুন।
  • পরবর্তী ধাপে Acronics Image Enterprise Server সিলেক্ট করে এন্টার করলে কিছুক্ষণের মধ্যে গ্রফিক্যাল মুডে Acronics Image Enterprise Server মেনু আসবে, যেখানে আপনি মাউস ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এখন Create Image এ ক্লিক করে Next এ ক্লিক করুন তাহলে হার্ডড্রাইভগুলো দেখতে পাবেন।
  • যদি C: ড্রাইভে উইন্ডোজ ইনষ্টল করা থাকে এবং আপনি C: ড্রাইভেই ইমেজ করতে চাচ্ছেন তাহলে C: ড্রাইভ সিলেক্ট করে Next এ ক্লিক করুন এবং Information মাসেজ অপশন আসলে Ok করুন।
  • এবার আপনি যে ড্রাইভে ইমেজটি সেভ করতে চাচ্ছেন সেই ড্রাইভ সিলেক্ট করে ফাইলের একটি নাম লিখে Next এ ক্লিক করুন।
  • এবার Create Image Mode মেনু থেকে Create the full backup Image Archive এই অপশন সিলেক্ট রেখে Next করুন এবং Image Archive Splitting উইন্ডোতে Automatic অপনে টিক রেখে Next এ ক্লিক করুন এবং Compression Level উইন্ডোতে এ Maximum  নির্বাচন করে Next করুন।
  • এখন Image Archive protection এ ইচ্ছা করলে আপনি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে পারেন।

 Next এ ক্লিক করে Image Archive Comments Next এ ক্লিক করুন। তারপর Proceed বাটনে ক্লিক করার সাথে সাথেই  ইমেজ তৈরী হয়ে যাবে।

উইন্ডোস ইমেজ রিস্টোর করার নিয়ম:

যখনই  উইন্ডোজ ইনষ্টল করার প্রয়োজন পরবে তখনই এই ইমেজটি রিস্টোর করে দিলেই হবে যাবে। আপনি যে ড্রাইভে উইন্ডোস ইনষ্টল করবেন সেই ড্রাইভ ফরম্যাট করতে হিরেন বুট সিডি থেকে Partition Tool থেকে Partition Magic Pro 8.05 এর অপশনের মাধ্যমে ড্রাইভটিকে আপনি ফরম্যাট করতে পারেন।
ইমেজটি রিস্টোর করার জন্য আপনি পূর্বের নিয়মের গ্রফিক্যাল মুডে Acronics Image Enterprise Server উইন্ডো আনুন।

  •  Restore Image এ ক্লিক করে Next এ ক্লিক করুন এবং Image Archive Selection উইন্ডো থেকে আপনার তৈরী করা ইমেজটি সিলেক্ট করে Next এ ক্লিক করুন।
  • একহন Verify Archive Before The Restoring উইন্ডো থেকে No. I do not want to verify সিলেক্ট রেখে Next এ ক্লিক করে Partition or Disk to Restore থেকে Disk সিলেক্ট করে Next এ ক্লিক করুন।
  • এখন যে ড্রাইভে আপনি উইন্ডোজ ইনষ্টল করতে চান সেই ড্রাইভ সিলেক্ট করে Restore Partition Type উইন্ডো থেকে পার্টিশন  নির্বাচন করে Next করুন এবং Restore Partition Size উইন্ডো থেকে ডিফল্ট রেখে Next এ ক্লিক করুন।
  • এখন Next Selection থেকে No I do not image করে Proceed বাটনে ক্লিক করে দিন, নির্দিষ্ট ড্রাইভে কিছুক্ষনের মধ্যে সবকিছু হুবহু রিস্টোর হয়ে যাবে।
  • এখন আপনার নতুন উইন্ডোজটি চালু করুন আর দেখুন আপনার সকল অ্যাপলিকেশন প্রোগ্রাম ইনষ্টল অবস্থায় আছে।

ডাউনলোড লিঙ্ক: 

HTTP (mirror #1): Hiren’s BootCD v9.5 incl. keyboard patch
HTTP (mirror #2): Hiren’s BootCD v9.5 incl. keyboard patch
HTTP (mirror #3): Hiren’s BootCD v9.5 incl. keyboard patch
HTTP (mirror #4): Hiren’s BootCD v9.5 incl. keyboard patch
HTTP (mirror #5): Hiren’s BootCD v9.5 incl. keyboard patch


আরো দেখুনঃ

১। সকল পিডিএফ বই ফ্রী ডাউনলোড করুন। 

Post Comment

সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

যেভাবে স্মার্ট ফোনে কন্টাক্ট ব্যাকআপ করবেন, জীবনেও হারাবে না । Backup Your Phone Contact

যেভাবে স্মার্ট ফোনে কন্টাক্ট ব্যাকআপ করবেন, জীবনেও হারাবে না । Backup Your Phone Contact:

এই তথ্য প্রযুক্তির যুগে আপনি যদি বলেন,আমার এন্ড্রয়েডের সাথে কন্টাক্ট লিস্ট ও হারাই গেসে, দোস্ত নাম্বার দে ” এটা বলা মানে এটা খুব দুঃখজনক বিষয়।

আজকে আমরা শিখবো কিভাবে স্মার্ট ফোনে কন্টাক্ট ব্যাক আপ করে রাখা যায় এবং হারিয়ে গেলে যাতে সহজে রিকভার করা যায়।

Backup



আপনারা যারা এন্ড্রয়েড ইউজ করেন তাদের সবারই অবশ্যই Gmail একাউন্ট আছে। আপনার এই Gmail একাউন্টেই আপনি আপনার ফোনের সব কন্টাক্ট Sync (Synchronization) করে রাখতে পারবেন। এ পদ্ধতিতে আপনার ফোনের সব কন্টাক্ট গুগলের অনলাইন সার্ভারে সংরক্ষিত থাকবে, আপনার ফোন চুরি হয়ে গেলেও চোর তো আর অনলাইন সার্ভার চুরি করতে পারবে না ।

এবার আসি কিভাবে করবেন?

আমাদের সবারই সিমে অনেক নাম্বার সেভ থাকে, এগুলো আগে Gmail একাউন্টে আনতে হবে। People বা Contact অ্যাপ এ ঢুকেন তারপর মেনু থেকে “Import/Export”


তারপর আপনার যে সিম থেকে কপি করবেন সেটা সিলেক্ট করুন  (ছবির মত)
Next এ ক্লিক করুন।


তারপর আপনার Gmail আইডি সিলেক্ট করুন  (যেটাতে কপি করবেন)
যে কন্টাক্টগুলো কপি করতে চান সিলেক্ট করে নিন / সব কন্টাক্ট সিলেক্ট করতে চাইলে  0 Selected  এ প্রেস করুন, অপশন চলে আসবে।
কপি শেষ হলে নোটিফিকেশন দেখাবে কয়টা কপি হল।

সফল ভাবে এগুলা সার্ভার পর্যন্ত পৌঁছে গেছে কিনা তা জানতে হলে
Settings > Account > Google > @gmail.com তে যান।


Contacts  এর পাশে টিক চিহ্ন দিয়ে দিন, যদি দেওয়া থাকে তবে তুলে দিয়ে আবার টিক চিহ্ন দিন! 
এর পর আপনার ফোনে কন্টাক্ট Sync হওয়া শুরু হয়ে যাবে। প্রথম বার Sync হতে একটু টাইম নিবে, অবশেষে  Last Sync at লিখা  দেখাবে, তার মানে হয়ে গেছে।
যদি Sync ঠিক মত না হয় তবে Error দেখাবে।

এর পর  নতুন কোন নাম্বার সেইভ করার সময় আপনি ‘Store the contact to ‘ এর জায়গায় জিমেইল আইডিতে করবেন।তাইলে নিজে নিজেই Sync করে নিবে।



কিছু সাবধানতাঃ
• Gmail এর পাসওয়ার্ড অবশ্যই মনে রাখবেন বা কোথাও লিখে রাখবেন।

•Sync এর পর People এ গিয়ে যদি আপনি কোন Contact ডিলিট করে দেন,তাইলে সেটা কিন্তু গুগল সার্ভার থেকেও ডিলিট হয়ে যাবে। তাই এই ব্যাপারে সচেতন থাকবেন।

• আপনার ফোনে একই নাম্বার দুইবার দেখাতে পারে। এটা থেকে বাঁচতে
People > Contact To Display > তারপর আপনার জিমেইল আইডি সিলেক্ট করে দিন।

আপনার কাজ শেষ । বুঝতে যদি কোন সমস্যা হয় তবে কমেন্টে জানাতে পারেন।



Post Comment

শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

স্মার্ট ফোনে যে 24 টি অ্যাপ থাকা মানেই আপনার সর্বনাশ

আপনারা যাঁরা অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহার করেন, তাঁদের প্লেস্টোর থেকে অ্যাপ ডাউনলোডের সময় অনেক সতর্ক থাকতে হবে।কারন এখন অনেক জনপ্রিয় অ্যাপের ছদ্মবেশে আপনার স্মার্টফোনে ম্যালওয়্যার বা ক্ষতিকর প্রোগ্রাম  ঢুকে সর্বনাশ ঘটাতে পারে।আপনার স্মার্টফোনে এসব প্রোগ্রাম চালু থাকলে গোপনে ফোনের সব কার্যকলাপের তথ্য পাচার করে দেয়।
24 টি অ্যাপ
গোয়েন্দাগিরির শিকার হয়ে যেতে পারেন আপনিও । তাই সাইবার ক্রাইম ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা  গুগলের প্লেস্টোরে থেকে ডাউনলোড করা কয়েকটি অ্যাপ দ্রুত সেখান থেকে সরিয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়েছেন।

ভিপিএন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ভিপিএন প্রো এর পক্ষ থেকে 24 টি বিপজ্জনক অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সম্পর্কে সতর্ক করা হয়েছে। এই সকল অ্যাপ ইতিমধ্যে ৩৮ কোটি ২০ লাখ বার ডাউনলোড হয়ে গেছে। মোবাইল ফোন থেকে গোপনে তথ্য সরানোর অভিযোগে গুগল মামা ইতিমধ্যে এসব অ্যাপ সরিয়ে দিয়েছে। তবে আপনার স্মার্টফোন এসব অ্যাপ থাকা মানেই যেকোন বিপদ ঘটতে পারে। এসব অ্যাপের মধ্যে রয়েছে ক্যামেরা ও ব্যাটারির  বিষয়ক অ্যাপ , প্রয়োজনীয় তথ্য ও ছবি বা ভিডিও ধারণ করার জন্য বিভিন্ন অ্যাপ।

বিপজ্জনক 24  টি অ্যাপের তালিকা নিচে দেওয়া হলো:

  1.  ওয়ার্ল্ড জু, ওয়ার্ড ক্রাশ,
  2.  ওয়ার্ড ক্রসি, 
  3. ওয়েদার ফোরকাস্ট, 
  4. ভাইরাস ক্লিনার ২০১৯, 
  5. টার্বো পাওয়ার, 
  6. সুপার ক্লিনার,
  7.  সুপার ব্যাটারি, 
  8. সাউন্ড রেকর্ডার, 
  9. সকার পিনবল, 
  10. পাজল বক্স, 
  11. প্রাইভেট ব্রাউজার, 
  12. নেট মাস্টার, 
  13. মিউজিক রোম, 
  14. লেজার ব্রেকার, 
  15. জয় লঞ্চার, 
  16. হাই ভিপিএন, 
  17. ফ্রি ভিপিএন, 
  18. হাই ভিপিএন প্রো, 
  19. হাই সিকিউরিটিজ ২০১৯, 
  20. ফাইল ম্যানেজার, 
  21. ডিগ ইট, 
  22. ক্যান্ডি সেলফি ক্যামেরা, 
  23. ক্যান্ডি গ্যালারি, 
  24. ক্যালেন্ডার লাইট।  
 
তথ্যসূত্র: প্রথম-আলো


উপরের অ্যাপগুলোর মধ্যে যদি আপনার ফোনে কোনটি থাকে তবে এক্ষনি তা রিমুভ করে দিন, তা না হলে ঘটতে পারে বড় সর্বনাস।
পোষ্টটি যদি ভালো লাগে তাহলে কমেন্ট করে জানাবেন।

আরো দেখুনঃ

Post Comment

বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করা যায় যেভাবে | Start Freelancing

Start Freelancing : আপনারা যারা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে জানেন কিন্ত কীভাবে শুরু করবেন বা কীভাবে কী করবেন, তা নিয়ে দ্বিধায় আছেন তাদের জন্য এই পোষ্ট। ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে হলে যেসব যোগ্যতা থাকা একান্ত প্রয়োজন, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো:
Freelancing


  • ক্লায়েন্টের বা বায়ারের সাথে যোগাযোগের দক্ষতা, বিশেষ করে ইংরেজিতে ভালো লিখতে জানতে হবে।
  • কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে।
  • গুগল ও ইউটিউবের ব্যবহার জানা ও প্রয়োজনীয় তথ্য বের করে আনার দক্ষতা থাকতে হবে।
পরবর্তীতে যে প্রশ্ন মনে আসে তা হলো, কীভাবে শিখবেন?  এই প্রশ্নের উত্তর খুব সহজ, আপাতত আপনাকে কোথাও যেতে হবে না। গুগল আর ইউটিউব হতে পারে আপনার তাৎক্ষণিক শিক্ষক । আপনার যে বিষয়টি ভালো লাগে, সে বিষয়ের ওপর ভিডিও দেখুন, গুগল করুন, বিস্তারিত জানুন। এরপরও যদি  কোনো প্রশ্ন থাকে, তাহলে আপনার পরিচিত বা আশপাশে যাঁরা ফ্রিল্যান্সিং করে বা এই বিষয়ে অভিজ্ঞ, তাঁদের জিজ্ঞেস করুন। তবে মনে রাখবেন, কাজ পাওয়ার আগে সে বিষয়ে আপনাকে ভালোভাবে শিখতে হবে জানতে হবে। আপনি যদি কাজ না শিখেই কাজ পাওয়ার আশা করেন, তবে হবে আপনার চরম ভুল।

ফ্রিল্যান্সিং আসলে কী? ফ্রিল্যান্সিং কত বছর বয়স থেকে শুরু করা যায়? কী ধরনের দক্ষতা দরকার?

Start Freelancing
সহজভাবে বলতে গেলে , অনলাইন বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে মুক্ত পেশাজীবী হিসেবে কোনো কাজ করাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে থাকে। চেম্বারে বসে চিকিৎসক বা একজন আইনজীবী যেভাবে যেভাবে নিজের ক্যারিয়ার পরিচালনা করেন, সিনেমার অভিনয়শিল্পীরা যেভাবে নিজের সময় এবং পারিশ্রমিক নির্ধারণ করে কাজ করে, একইভাবে কোনো পেশায় কেউ যখন নিজের মতো করে ক্যারিয়ার পরিচালনা করেন, সেটাই হলো মূলত ফ্রিল্যান্সিং। ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য প্রকৃত পক্ষে বয়সের ধরাবাঁধা কোনো নিয়ম নেই। এখানে মূলত আপনার দক্ষতাই হলো সব কিছু। দক্ষতা থাকলে আপনার শিক্ষাজীবনের সনদ কোন মূল্য নেই এখনে।

Start Freelancing
অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার থাকতে হবে বিশেষ কোনো কাজের দক্ষতা। সেটা হতে পারে কনটেন্ট রাইটিং, গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, স্মার্টফোনের অ্যাপ তৈরি কিংবা এমন অসংখ্য কাজের মধ্যে কোনোটা, যেটাতে আপনি নিজেকে দক্ষ মনে করেন। মনে রাখা ভালো, যে আপনি কোনো কাজে দক্ষ না হলে প্রথমে কোনোভাবে কাজ পেয়ে গেলেও বেশি দিন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে টিকে থাকতে পারবেন না। এখানে আপনার দক্ষতাই হচ্ছে সব কিছু।

আরো দেখুনঃ

Post Comment